ত্বকের যত্নে আম

চলছে ফলের মৌসুম। আম, কাঁঠাল, লিচু আরও কত কত ফলের সমারোহ দেখা যাচ্ছে এই সময়। রস, গন্ধ আর মিষ্টতায় যে ফলটির নাম আগে উচ্চারণ করতে হয় তা হলো আম। ফলের তালিকায় আমের অবস্থান সাধারণত সবার উপরেই থাকে। প্রায় সাড়ে চার হাজার বছর আগে হিমালয়ের আশপাশের সমতলভূমিতে এ ফলটি আবিষ্কৃত হয়েছিল। সারা বিশ্বে প্রায় এক হাজার প্রজাতির আম রয়েছে। হয়তো ভাবছেন আম নিয়ে এত কথা বা এর ইতিহাস বলা হচ্ছে কেন? উত্তরটা আমরাই দিয়ে দিচ্ছি। ত্বকের যত্নে আম।

অবাক হচ্ছেন! অবাক হওয়ার কিছু নেই। কারণ অনেক রূপচর্চাবিদ আমের রস দিয়ে ত্বকের যত্ন বিষয়ক বিভিন্ন টিপস দিয়েছেন। আমের মধ্যে থাকা ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, কপার, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম ইত্যাদি উপাদান ত্বকের যত্নে খুবই উপকারি। তাই এই গরমে নিজের ত্বকের যত্ন নিতে কিভাবে আমের রসকে কাজে লাগাবেন এরকমই কিছু টিপস উপস্থাপন করা হলো।

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে: অনেক সময় যত্নের অভাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা হারিয়ে যায়। তা হলে সহজেই ঘরোয়া পদ্ধতিতে আমের রসের ব্যবহার করতে পারেন। ১ চামচ আমের পাল্প, ২ চামচ ময়দা, ১ চামচ মধু দিয়ে একটি প্যাক বানান। এর পরে পুরো মুখের মধ্যে লাগান। ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখার পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

মৃত কোষ: যত্নের অভাবে ত্বকের মধ্যে ধুলো, ময়লা জমতে থাকে এবং মুখের মধ্যে মৃত কোষগুলো থেকে যায়। ত্বকের যত্ন নিতে অনায়াসে আম ব্যবহার করতে পারেন। আমের পাল্পের মধ্যে ১ চামচ মধু, ১ চামচ দুধ মিশিয়ে একটি স্ক্র্যাবার বানিয়ে নিন। এর পরে মুখে ১০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। এর পর ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

নরম ও কোমল ত্বক: নরম ও কোমল ত্বক রাখতে চাইলে ২ চামচ আমের পাল্প, ১ চামচ ওটস, ২ চামচ দুধ মিশিয়ে স্ক্র্যাবার বানিয়ে নিন। এর পরে ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। স্ক্র্যাবারটি মুখে শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

ব্রণ: ব্রণ থেকে মুক্তি দিতে পারে আম। ১ চামচ আমের পাল্প, ২ চামচ টক দই ও ২ চামচ মধু দিয়ে প্যাকটি বানিয়ে নিন। ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। এর পরে জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

ত্বক পরিষ্কার করতে: আপনার ফলের ঝুড়িতে আম থাকলে কেন আর কেমিক্যালযুক্ত ক্লিনজার কিনতে যাবেন? কয়েক টুকরো আম ও ময়দা দিয়ে ক্লিনজার তৈরি করুন। এটা ভালো একটি ক্লিনজার হিসেবে ত্বকের গভীর থেকে ময়লা পরিষ্কার করে এবং ত্বকের অনমনীয় ভাব দূর করে।

ব্ল্যাকহেড রোধ করতে: তৈলাক্ত ত্বক হচ্ছে ব্ল্যাকহেডের অন্যতম কারণ। আর গরমকাল মানেই ত্বক চর্বিযুক্ত হয়ে ওঠা। গরমের দিনে ব্ল্যাকহেড দূর করতে প্রথমে এক টুকরো আম নিন। এরপর আধা চা চামচ দুধ ও মধু যোগ করুন। এখন পুরো মুখে মাখুন। এরপর ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন অল্প দিনের মধ্যেই দূর হয়ে যাবে ব্ল্যাকহেড।

এছাড়াও জেনে নিন আমের কিছু উপকারিতা-

-প্রতিবার খাওয়ার সময় এক টুকরো আম ত্বকে বু্লিয়ে নিন। এতে ত্বকের ডালনেস কমবে আর জেল্লা বাড়বে।

– প্রতিদিন একটি আম খেলে ভেতর থেকে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ে।

– রোদে পোড়া ত্বকে পাকা আমের ক্বাথ ও গুঁড়া দুধ মিশিয়ে ব্যবহার করুন। উজ্জ্বলতা ফিরে পাবেন।

-মধু দিয়ে আমের পাল্প দিয়ে তৈরি করা মিশ্রণও ত্বক পরিস্কার রাখার জন্য দারুণ কাজের।

– তাছাড়া ত্বকের দাগে নিয়মিত আমের রস ব্যবহারে দাগ হালকা করতে সাহায্য করে।

-আম রক্তে ক্ষতিকারক কোলেস্টেলের মাত্রা কমায়। ডায়াবেটিসের সঙ্গে লড়াই করে। ক্যানসার কোষকে মেরে ফেলতে সাহায্য করে।

-আমে রয়েছে উচ্চ পরিমাণ প্রোটিন যা জীবাণু থেকে দেহকে সুরক্ষা দেয়।

-ক্লিনজার হিসেবে ত্বকের উপরিভাগে কাঁচা এবং পাকা আম ব্যবহার করা যায়। আম লোমকূপ পরিষ্কার করে এবং ব্রণ দূর করে। বার্ধক্যের ছাপ রোধে আমের রস বেশ কার্যকরী। কাঁচা আমের রস, রোদে পোড়া দাগ দূর করতে সাহায্য করে।

একটা বিষয় জেনে রাখা খুব জরুরি কাঁচা আম দিয়ে নয় পাকা আম দিয়েই করতে হবে ত্বকের যত্নতবে এর পাশাপাশি নিশ্চিন্তে ব্যবহার করতে পারেন বায়োজিনের প্রোডাক্ট। ত্বকের যত্নে আম যেসব উপকারিতা দেয় তার অনেককিছুই পাবেন বায়োজিনের প্রোডাক্ট ব্যাবহারে। যেমন উজ্জ্বলতার জন্য ব্যবহার করতে পারেন হোয়াইটেনিং সিরিজ, ব্রণের জন্য ব্যবহার করতে পারেন একনি সিরিজ, ত্বক পরিষ্কার করতে ব্যবহার করতে পারেন ক্লিনজার ইত্যাদি

ত্বকের যেকোনো সমস্যার সমাধানে থাকুন বায়োজিনের সাথে। এছাড়া 01708411470 / 01708411471 / 01708411472-নাম্বারে কল দিয়ে আমাদের ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলতে পারেন। আমরা আছি আপনার সাথে।

Facebook Comments