অতিরিক্ত ওজন কমানোর পদ্ধতি

Blog image


আমরা সবাই সুন্দর হবার সাথে সাথে সুস্থও থাকতে চাই । সময়ের স্বল্পতা , আলস্য , অনীহা সব মিলিয়ে নিজের পরিচর্যা করা সব সময় হয়ে উঠে না । কিন্তু নিজেকে ফিট রাখা অনেক জরুরি ।

বাড়তি ওজন শুধু আপনার দৈহিক সৌন্দর্যকেই নষ্ট করে না বরন বিভিন্ন রোগের আশঙ্কাও বাড়িয়ে দেয় । অন্যদিকে নিজের মত করে নিজেকে উপস্থাপন করাটাও একটি শৈল্পিক বিষয় । তাই নিজেকে সুন্দর রাখতে সব সময়ই দরকার নিজের ওজনকে নিয়ন্ত্রণে রাখা ।

ওজন বাড়ার কারণ
অতিরিক্ত ওজন হওয়ার পেছনে প্রধান কারণ হচ্ছে শরীরের প্রয়োজন থেকে বেশি খাবার খাওয়া অর্থাৎ বেশি ক্যালোরির খাবার খাওয়া ।
শরীরের প্রয়োজন মেটানোর পর বাড়তি খাবার গুলো চর্বি হয়ে দেহকোষে জমা হয় । কিছু চর্বি শরীরে জমা থাকা দরকার প্রয়োজনে শক্তি সরবরাহ করার জন্যে । কিন্তু চর্বি বেশি জমা হলেই ওজনাধিক্য তৈরি হবে ।

চলুন জেনে নেই কিছু অভ্যাসগত কারণ ও চিকিৎসা ।

অতিরিক্ত ওজন কমানোর পদ্ধতিঃ
অতিরিক্ত ওজন কমাতে আমরা আমাদের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় কিছু মেনু পরিবর্তন আনতে পারি । এর পাশাপাশি করতে হবে ব্যায়াম ও নিতে হবে কিছু চিকিৎসা ।
১। পানি পান করুন
পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করলে শরীর আর্দ্র থাকে, এতে আপনার পেট ভরা এমন ভাবও তৈরি হবে। ক্ষুধাও কম লাগবে, এ কারণে আপনি কম খাবেন, ধীরে ধীরে ওজনও কমবে তাতে। দিনে অন্তত ১০ থেকে ১২ গ্লাস পানি পান করুন।
২। প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খান
প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খাদ্যতালিকায় রাখুন। এতে পেশি স্বাস্থ্যকর হবে। প্রোটিন খাবার বাদ দিলে শরীরে এর বাজে প্রভাব পড়বে। ডিম, দুধ, মুরগির মাংস, ডাল খাদ্যতালিকায় রাখুন। তবে লাল মাংস (গরু, খাসি) এড়িয়ে চলুন।
৩। সবজি খান বেশি বেশি
খুব সহজ কথা। সবজি খেলে ওজন কমে। হ্যাঁ, তাই থালায় বেশি বেশি সবজি রাখুন। সবজির মধ্যে রয়েছে পুষ্টি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এগুলো শরীর ভালো রাখতে সাহায্য করে।
৪। চিনি ও শর্করা থেকে দূরে
চিনি বা মিষ্টিজাতীয় খাবার থেকে ১৫ দিন অন্তত দূরে থাকুন। পাশাপাশি শর্করাজাতীয় খাবার কম খান। ভাত, রুটি কম খান। এসব খাবার কম খেলে ওজন দ্রুত কমবে।
৫। গ্রিন টি পান করুন:
কালো চা বা দুধ চা বাদ দিন, শুধুমাত্র গ্রিন টি পান করুন আগামী ২৪ ঘন্টা। এতে পাচনতন্ত্রে জমে থাকা ক্ষতিকর খাদ্যগুণ শরীর থেকে বেরিয়ে যাবে। এটা শরীরকে মেদমুক্ত করার প্রথম ধাপ। তবে মনে রাখবেন, কফি খাওয়া বারণ। কালো চা এবং কফিতে ক্যাফিন থাকে। অম্লমিশ্রিত ক্যাফিন শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর।

চিকিৎসাঃ খাবার দিকে খেয়াল রাখা , নিয়মিত ব্যায়াম করার পাশাপাশি বাড়তি ওজন কমাতে চিকিৎসাও নিতে হবে । কারণ ব্যায়াম ও খাবার পরিবর্তনের ফলে ওজন ধীরে ধীরে কম্বে কিন্তু এইসবের পাশাপাশি চিকিৎসাও প্রয়োজন।যারা সারাদিন অনেক ব্যস্ত থাকে ( অফিস, কলেজ ) এবং বাসায় খাবার খাওয়ার সময় পায় না , বাইরে অনেক ফাস্ট ফুড খেয়ে স্বাস্থ্য নষ্ট করে, ডায়েট করা বা নিজের দিকে খেয়াল রাখার সময় পায় না তারা 3 Max Cool Shaping ট্রিটমেন্ট নিতে পারেন ।

3 Max Cool Shaping অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন ব্যথা মুক্ত পদ্ধতি যার মাধ্যমে আপনার শরীরের বাড়তি ওজন কমাবে কোন প্রকার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া ছাড়ায়যারা মোটা শুধু তারাই নয় যারা স্লিম কিন্তু বডি সেপিং দরকার তাদের জন্যও পারফেক্ট ট্রিটমেন্ট 3 Max Cool Shaping . Cryo-lipolysis, ultra-cavitation, Ultrasound and Multi-polar Radio Frequency এর মাধ্যমে শরীরের অতিরিক্ত fat reduce করে শরীরের পারফেক্ট সেপিং করা হয়ে থাকে ।

Major functions

As Cooling lipolysis, Cavitation, Ultrasound and Multi-polar RF

Works to:

Lipolysis, Fat reduction, Cellulite, Tightening, Lymph drainage. Non-Invasive & Painless treatment.

Cost:
Taka 37000 (12 weeks complete session)/ Body part.
বায়োজিন স্কিন কেয়ার ক্লিনিকে আপনি 3 Max Cool Shaping এর Treatment পাবেন ।

3 Max Cool Shaping treatment এর পর করনীয়ঃ
শুধু ট্রিটমেন্ট নিলেই আপনার শরীরের পারফেক্ট সেপিং আসবে না, ট্রিটমেন্ট এর পর ডাক্টার আপনাকে ডায়েট চার্ট দিয়ে দিবে সেটা অবশ্যই মেনে চলতে হবে।তাছাড়া ট্রিটমেন্ট পর কমপক্ষে ৩-৪ ঘণ্টা ভারী কোন খাবার খাওয়া যাবে না



Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *