শীতের পিঠাপুলি খেয়েও ওজন নিয়ন্ত্রণ কি সম্ভব?

শীতের সবজির সাথে সাথে শীতের পিঠা ছাড়া শীত কল্পনা করা যায়না।

ট্রেডিশনাল বিভিন্ন পিঠা ছাড়া সার্থকতা নেই। পিঠা কি তাহলে খাবোনা?  যদি খেয়ে ফেলি তাহলে ওজন নিয়ে একটা চিন্তা থেকে যায়। 

সবসময় এতো ক্যালকুলেটিভ উপায়ে খাদ্য গ্রহণ করা যায়না এটাও যেমন সত্যি তেমন একটু ক্যালকুলেটিভ  হলেই সুস্থ এবং সুন্দরভাবে ওজন নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।

 

পিঠা খাওয়ার ক্ষেত্রে কিছু নিয়মাবলি মেনে গ্রহণ করতে  হবেঃ

১. সকালে নাস্তার বিপরীত হিসেবে পিঠা গ্রহণ করুন তবে অবশ্যই নরম ধরনের পিঠা গ্রহণ করুন। ( সকালে ডুবো তেলে ভাজা পিঠা এসিডিটির প্রবনতা বাড়ায়)

২. অধিকাংশ পিঠায় চালের গুড়া, ময়দা মিশ্রিত থাকে যা গ্রহণ কার্বোহাইড্রেট গ্রহণই হয় তাই দুপুরে যাদের ভাতের ক্রেভিং আছে তারা ভাত গ্রহণের পরিমান একেবারে কমিয়ে দেন মাছ কিংবা মাংস পরিমিত পরিমাণে গ্রহণ করুন ( পিঠা গ্রহন না করলে উচ্চতা ও কাজকর্ম অনুপাতে ভাত গ্রহণ করবেন)

৩. বিকেলের সময়টা দুধ গ্রহণের  অভ্যাস থাকলে দুধের পরিবর্তে সেই সময় দুধের তৈরি পিঠা গ্রহণ করতে পারেন। (দুধের তৈরি পিঠা খেলে সারাদিনে দুধ গ্রহণ না করা) 

৪. সারাদিনে পিঠা ভালো পরিমানে খাওয়া হলে রাতে খাবার একদম কমিয়ে ফেলেন সেক্ষেত্রে মিক্স সবজি গ্রহন করতে পারেন অথবা স্যুপ গ্রহণ করতে পারেন ( শাক জাতীয় খাবার রাতে গ্রহণ করা যাবেনা হজমে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে)।

৫. সকাল থেকে শুরু  করে বিকালের পুর্বমুহুর্তে পিঠা গ্রহণ করুন। রাতে পিঠা গ্রহন এড়িয়ে চলুন। 

শীতের এই সময়টাতে ছোট-বড় মোটামুটি সকলের বেডমিন্টন, টেবেল টেনিস সহ অন্যান্য খেলাধুলা করা হয় যেগুলোতে খুব ভালো এক্সারসাইজ হয়। তাই মধ্যবয়সী  যাদের  এক্সারসাইজের এর অনিহা আছে তারা খেলাধুলা করতে পারেন তাহলে ভালো ধরনের এক্সারসাইজ হয়ে যাবে সাথে সারাদিনের গ্রহণকৃত ক্যালরি বার্ন হয়ে যাবে।

খাবার গ্রহণের৷ পরিমানে তারতম্য হলে ব্যায়ামের মাত্রা বাড়িয়ে সুস্থ থাকুক। 

 আপনি প্রতিদিন যে ধরনের খাবার গ্রহণ করেন না কেন সেই পরিমান ক্যালরি প্রতিদিন এক্সারসাইজ এর মাধ্যমে বার্ন করলে ফ্যাট জমা হয়না ( প্রতিদিন টান্সফ্যাট, ডুবো তেলে ভাজা খাবার খেয়ে ক্যালরি বার্ন করলেও ফ্যাট কিছুটা জমতে পারে)।

 

বিঃদ্রঃ ব্যাক্তিভেদে পিঠাপুলি গ্রহণে বিধিনিষেধ থাকতে পারে।

 

Most. Nourin mahfuj

Fitness Nutrition Specialist

Bio-xin Fitness Solution

Facebook Comments