প্রেগন্যান্সি নিয়ে আমরা কতটা সচেতন??

সুস্থ একজন মা সুস্থ একটির শিশু জন্ম দেয় এই প্রচলিত কথা আমরা কম বেশি শুনে থাকি কিন্তু কয়জন এই কথার মানে সত্যিকার উপলব্ধি করতে পারি।

বর্তমানে আমাদের খাদ্যভাস ও জীবন যাপনের ধরণ আমাদের প্রেগন্যান্সির উপর মারাত্মক প্রভাব ফেলছে। 

 

অনেকের ভাবেন আমি আমার প্রেগন্যান্সির সময় অনেক স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেয়েছি তাহলে আমার সাথে এটা কেন হলো-

১. প্রেগন্যান্সিতে জটিলতা বাড়ছে

২. মিসক্যারেজ  হচ্ছে

৩. শিশুর ওজন কম হচ্ছে

৪.বিকলাঙ্গ শিশুর হাড় বাড়ছে

৫. মায়ের পেটে( ৬-৮) মাস অবস্থায় শিশুর মৃত্যু ঘটছে  

এগুলো সহ আরও অনেক ধরনের সমস্যা বর্তমান যুগের মেয়েরা সম্মুখীন হচ্ছে।

 

আপনার ছোট থেকে বড় হওয়া এবং প্রেগন্যান্সির পূর্বের জীবন যাপন প্রেগন্যান্সিতে প্রভাব ফেলে। আমরা জীবনদশায় যখন এক ফেজ থেকে অন্য ফেজ এ পা দিচ্ছি আমাদের ইমিউনিটি দুর্বল হচ্ছে।

আমাদের সঠিক খাদ্যভাস শারীরিক পরিশ্রম আমাদের ইমিউনিটিকে বুস্ট করতে সাহায্য করে যা আমাদের প্রেগন্যান্সি থেকে শুরু করেশিশু জন্মদান এবং শিশুর পরবর্তী বিকাশে সাহায্য করে।

প্রেগন্যান্সির সাথে সম্পর্কিত যেকোনো ধরনের জটিলতাকে রোধ করতে নিজের খাবারের পুষ্টি প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানুন। আপনি হয়তো যে ফর্মুলাতে খাবার গ্রহণ করছেন সঠিক কিংবা আপনার শরীরের জন্য উপযোগী নয়।

শীত সবজির মৌসুম। বিভিন্ন রঙিন এসব সবজি খেতে যতটা সুস্বাদু ঠিক ততটাই পুষ্টিগুন সম্পন্ন। 

এসব প্রতিটি ভিন্ন ভিন্ন সবজির ভিন্ন ভিন্ন উপাদান আমাদের শারীরিক বিভিন্ন ঘাটতি পূরণে সহযোগিতা করে। 

সবজি গ্রহণের সুবিধা হলো দিনের যেকোনো ভাগে গ্রহন করেন না কেন খুব সহজে হজম হয়।

 

প্রেগন্যান্সির জন্য প্ল্যান থাকলে যে-ধরনের বিষয় এড়িয়ে চলবেনঃ

১. প্রেগন্যান্সির পূর্বের কয়েক মাস প্রোটিন এর পরিমান বাড়িয়ে দেবেন মাছ এর পরিমান বাড়িয়ে দিবেন।

২.বিশেষত টক জাতীয় ফল ও সবজি গ্রহন বাড়িয়ে দিতে হবে। 

৩. সকালে রোদে ১০-১৫ মিনিট যেতে হবে যাতে দেহে ভিটামিন-ডি এর স্বল্পতা না দেখা দেয়।

৪. ক্যাফেইন এড়িয়ে চলতে হবে ( রং চা কিংবা গ্রীন টি সঠিকভাবে গ্রহণ করতে পারেন)। 

৫. ব্যায়াম করতে হবে সাথে পরিমিত পরিমানে ঘুম এবং পানি পান করতে পারে।

৬. মানসিকভাবে ভালো লাগে এমন কাজ করতে হবে।

 

আপনার সুস্থতাই পারে একটি শিশুর মানসিক ও শারিরীক সুস্থ বিকাশ। 

 

Most. Nourin mahfuj

Fitness Nutrition Specialist

Bio-xin Fitness Solution

 

Facebook Comments