ইটিং ডিসঅর্ডার এর ঝুঁকি যেভাবে বাড়ছে??? খন্ড- ৩

ইটিং ডিসঅর্ডার গুলোর মধ্যে মানসিক অসুস্থতায় অ্যানোরেক্সিয়া (Anorexia) তে মৃত্যু হার সবচেয়ে বেশি।  

যেহেতু গণমাধ্যমগুলি –

  • সিনেমা
  • ম্যাগাজিন
  • ফ্যাশন আদর্শ 
  • বিলবোর্ড 
  • বিজ্ঞাপন সহ
  • অন্যান্য মাধ্যম আমাদের প্রতিদিনের ক্রিয়াকলাপের সাথে জড়িত তাই শরীরের দুর্বল কাঠামো ও ওজন কমানোর এক ধরনের প্রতিযোগিতায় কিশোর-কিশোরীরা তাদের প্রতিদিনের চাহিদানুযায়ী খাবার গ্রহণ করেনা। 

বিশেষজ্ঞদের মতে এদের মধ্যে ইটিং ডিসঅর্ডার এর অ্যানোরেক্সিয়ার (Anorexia) সম্ভবনা বেশি।

 

# উভলিঙ্গ, লেজবিয়েন, গে, ট্রান্সজেন্ডার দের সমাজের চলতে প্রতিনিয়ত কটু কথা শুনতে হয়ে যা তাদের মানসিক অবস্থার উপর বিরুপ প্রভাব ফেলে এ ধরনের ব্যাক্তিদের ইটিং ডিসঅর্ডার গুলোর অ্যানোরেক্সিয়া (Anorexia) ও বুলিমিয়া ( Bulimia) ঝুঁকির সম্ভবনা বেশি। 

(ন্যাশনাল ইটিং ডিজঅর্ডার অ্যাসোসিয়েশন এর গবেষণা মতে)।

# মহিলা ব্যালে নৃত্যশিল্পীরা নিজেদের ওজন ও দেহের কাঠামোর বিষয়ে অতিরিক্ত সচেতনতার কারণে তাদের খাবার দাবার গ্রহণের ক্ষেত্রে সব সময়ের বিধিনিষেধে পুষ্টি চাহিদার ঘাটতির দরুন বিষন্নতায় ইটিং ডিজঅর্ডার হওয়ার প্রবনতা বেশি।

# যারা নিরামিষভোজী  (খাদ্য থেকে প্রাণীজ প্রোটিন যেমন মাছ, মাংস, ডিম সহ অন্যান্য খাবার গ্রহণ করেনা) এদের মধ্যে পাচঁ শতাংশের  ইটিং ডিজঅর্ডার এর সম্ভবনা থাকে। যারা “আধা-নিরামিষাশী” হিসাবে নিজেকে  বিবেচনা করে তাদের এ ঝুঁকি নেই।

# ব্যক্তির দীর্ঘমেয়াদি বিশৃঙ্খলাযুক্ত খাদ্যের সাথে সম্পর্কিত কিছু স্বাস্থ্যগত পরিণতি (হাড়ের ক্ষয় বা অস্টিওপোরোসিসে আক্রান্ত মহিলারা) ইটিং ডিসঅর্ডার গুলোর অ্যানোরেক্সিয়া নার্ভোসাকে প্রভাবিত করে।

 

খাদ্যভাস সম্পর্কে ভুল তথ্যের কারণে এবং অন্যের খাদ্যভাস অনুসরণ করে নিজের প্রতিদিনের খাদ্যচাহিদা পূরন না করে সামাজিক-পারিবারিক অশান্তিতে, বিষন্নতায় আমরা নিজেদের সাস্থ্য ঝুঁকি বাড়াচ্ছি। যার ফলে ইটিং ডিসঅর্ডার এর মত আরও মানসিক অসুস্থতা গুলোতে মৃত্যু হচ্ছে। 

 

মূল তাৎপর্যঃ  নিজেদের খাদ্যচাহিদা জানুন অন্যদের ডায়েট অনুসরণ এড়িয়ে চলুন রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ান। মেডিটেশন, ইয়োগা কিংবা ব্যায়ামের মাধ্যমে নিজেকে মানসিক ভাবে সুস্থ রাখুন।

 

Most. Nourin Mahfuj

Fitness Nutrition Specialist 

Bio-xin Fitness solution

Facebook Comments