ডাবল চিন দূর করার উপায়

ডাবল চিন হল, মেদবহুল কলা বা ফ্যাটি টিস্যুর স্তর যা আপনার থুতনি বা চিবুকের তলায় থাকে। কিছু মানুষের ক্ষেত্রে বয়সজনিত কারণে ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা সম্পর্কিত ফ্যাক্টরের জন্য ডাবল চিন হয়ে থাকে। মুখে সাধারণত মেদ জমার কারণে এই ধরণের সমস্যা হয়ে থাকে, যা আপনার সৌন্দর্য্যের পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে। অনেক সময় জিনগত কারণেও ডবল চিনের সমস্যা হতে পারে। অস্ত্রপ্রচারের মাধ্যমে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তবে তা যেমন ব্যায়বহুল হয় তেমনি এর ফলাফল অনেক সময় মারাত্মক হয়ে যেতে পারে।

এই সমস্যা প্রকট হয়ে যাওয়ার আগেই দরকার সঠিক পদ্ধতি। এর আগে একটা কথা বলে রাখা গুরুত্বপূর্ণ, কেবল শরীরের অন্য অংশের মেদ কমাতে যে সব কৌশল কাজে আসে, তার সবগুলো মুখমণ্ডলের মেদ কমাতে সাহায্য করে না। বরং মুখের জন্য আলাদা করে কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হয়। আমাদের চিবুকের অধীনে থাকা চামড়ার ইলাস্টিন যখন কোলাজেন তন্তুর ভাঙ্গনের কারণে লুজ হয়ে যায় এবং তার স্থিতিস্থাপকতা হারায় তখন একটি ডাবল চিবুকের উদ্ভাবন হয়।

সাধারণত, ডাবল চিবুক ন্যাচারাল এজিং প্রক্রিয়ার একটি অংশ। এই সমস্যার সমাধানে ব্যবহার করুন বায়োজিনেন পণ্য-Liftoceuticals-Skin Lifting Biotech Product, এটি কোলাজেন, ইলাস্টিনের উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করবে। যা ডাবল চিন হওয়া থেকে আপনাকে রক্ষা করবে। এছাড়াও ব্যবহার করতে পারেন-Mincer Boto Lift X Moisturising-Shaping Day Night Cream, Mincer Boto Lift X Facial Serum,Lift Effect, এই পণ্যগুলো ৩৫+ স্কিন এর জন্য উপকারী। এছাড়াও নিতে পারেন ফেসিয়াল ফ্যাট রিডাকশন ট্রিটমেন্ট Comfort Dual

ঘরে বসেও আপনি নিতে পারেন ডাবল চিন দূর করার পদ্ধতি। এবার জানা যাক কি কি ঘরোয়া উপায় ও পদ্ধতি গ্রহণ করলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

ডিমের সাদা অংশ: ডিমের সাদা অংশ আপনার মুখের ডাবল চিন দূর করতে ভীষণ সাহায্য করবে, কেননা এটা ত্বককে করে তোলে টানটান। দুটি ডিমের সাদা অংশ, এক টেবিল চামচ মধু, কাঁচা দুধ ও লেবুর রস একত্রে মিশিয়ে নিন। এর সাথে কয়েক ফোঁটা পিপারমেন্ট এসেনশিয়াল অয়েল মেশাতে পারেন। এই মিশ্রণটি ভালো করে মুখে ও গলায় লাগান। এটি ৩০ মিনিট রাখুন। ৩০ মিনিট পর মুখ ভালো করে উষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে মুছে নিন।

তরমুজ: এতে থাকা বিভিন্ন উপাদান ত্বকের রং স্বাভাবিক করতে এবং চামড়া ঝুলে যাওয়া থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। ফলে চোয়ালের নিচে চর্বি জমতে পারে না। ডাবল চিন সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে প্রতিদিন তরমুজের রস (পানি ছাড়া) আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে ২০ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলতে হবে।

দুধের ম্যাসাজ: দুধ দিয়ে ম্যাসাজ করলে আপনার মুখের ত্বক থাকবে টানটান, মুখ থাকবে স্লিম এবং ফিট। একই সাথে ত্বকও হয়ে উঠবে মোলায়েম ও আকর্ষণীয়।মুখে কাঁচা দুধ লাগান এবং হালকা হাতে ম্যাসাজ করুন ভালো করে। উষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। দিয়ে বেশ কয়েকবার কাজটি করুন প্রতিদিন টানা কয়েক সপ্তাহ।এছাড়াও মধু ও কাঁচা দুধ মিলিয়ে প্যাক তৈরি করে রাখতে পারেন। এই প্যাক মুখে মেখে রাখুন ১০ মিনিট। উষ্ণ পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এই কাজটি রোজ করবেন।

গ্রিন টি: গ্রিন টি ত্বকের নমনীয়তা বৃদ্ধি করে। এর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান ত্বকে বলিরেখা পড়া রোধ করে। প্রতিদিন গ্রিন টি পান করুন। এছাড়া গ্রিন টি গলার ডাবল চিনে ম্যাসাজ করে লাগাতে পারেন।

গ্লিসারিন: এক টেবিল চামচ গ্লিসারিন, আধা চামচ ইপসাম সল্ট এবং কয়েক ফোঁটা পেপারমেন্ট অয়েল মিশিয়ে নিন। একটি তুলোর বল মিশ্রণটি লাগয়ে গলা এবং ঘাড়ে ম্যাসাজ করুন। এটি কয়েক মিনিট রাখুন ত্বকে শুষে নেওয়ার জন্য। এরপর ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি প্রতিদিন কয়েক সপ্তাহ করুন।

কোকো বাটার: কয়েক টেবিল কোকো বাটার মাইক্রোওয়েভে গরম করে নিন। এবার এটি আলতোভাবে কয়েক মিনিট ম্যাসাজ করুন গলায়। এটি দিনে দুইবার করুন। সকালে গোসলের আগে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এটি ব্যবহার করুন। কোকো বাটার ত্বকের নমনীয়তা বৃদ্ধি করে।

সুগার ফ্রি গাম: দিনে বেশ কয়েক বার সুগার ফ্রি চিউইংগাম চাবানোর অভ্যেস করলে ডাবল চিন থেকে নিষ্কৃতি পাওয়া যেতে পারে। এটি একধরণের চোয়ালের ব্যায়াম যা চোয়ালের পেশীতে মেদ জমতে দেয় না, এবং পেশীকে টানটান রাখে। এছাড়া এটি আমাদের দাঁত ও মাড়িকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

ভিটামিন -ই: যে সব খাবারে ভিটামিন ই থাকে যেমন সবজি ,ফল,ব্রাউন রাইস ,বিন্স,সয়াবিন, বাদাম,দুগ্ধ জাত পদার্থ ইত্যাদি খাওয়া উচিত। এগুলি প্রতিদিন খেলে ডাবল চিন হওয়ার সম্ভাবনা অনেক অংশে কমে যায়। এছাড়া ভিটামিন ই আমাদের ত্বকের সতেজতা রক্ষা করে, ত্বকের পেশীকে টানটান রাখে।

যাঁদের ডবল চিন হয়ে গিয়েছে, তাঁরা কিন্তু রাতারাতি কোনও ফল পাবেন না, একটু ধৈর্য ধরে ব্যায়াম করে যেতে হবে। সেই সঙ্গে পুরো শরীরের ওজন কমানোর প্রতিও নজর দিন।

মেকআপও ডাবল চিন কমাতে সাহায্য করে। কি অবাক হলেন?? হয়তো বিশ্বাসই হচ্ছে না। এই বিষয় সম্পর্কে জানতে থাকুন বায়োজিনের সাথে।

ঘরোয়া পদ্ধতি ও বায়োজিনের পণ্য পরস্পরের পরিপূরক। দ্রুত ফলাফল পেতে ঘরোয়া কৌশলের পাশাপাশি ব্যবহার করুন বায়োজিনের পণ্য। আর তাতে ফল আপনি নিজেই দেখতে পাবেন অল্প সময়ে। এছাড়া কোনো পরামর্শ ও জিজ্ঞাসার জন্য কল করুন-01708411472 / 01708411470 নাম্বারে অথবা সরাসরি চলে আসুন আমাদের স্কিন কেয়ার ক্লিনিকে। বায়োজিন স্কিন কেয়ার ক্লিনিক – শান্তিনগর, ধানমন্ডি, মিরপুর, উত্তরা।। ত্বকের যত্ন বিষয়ক টিপস, ট্রিটমেন্ট সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন-https://bioxincosmeceuticals.com

আপনি আর কোন বিষয়ে জানতে চান আমাদের কমেন্ট করে জানান। বায়োজিন চেষ্টা করবে সে বিষয়ে আপনাকে সবচেয়ে ভালো পরামর্শটা দিতে। ত্বকের যত্ন নিন, বায়োজিন আছে আপনার সাথে।

 

Facebook Comments