রোগের প্রতিষেধক ফাইবার

ফাইবার উদ্ভিদ জাতীয় খাবারের অংশবিশেষ, হজম সিস্টেমকে পরিষ্কার ও স্বাস্থ্যকর রাখে, অন্ত্রের গতি কমায় কোলেস্টেরল এবং ক্ষতিকারক কারসিনোজেনগুলি শরীর থেকে বের করে। 

ফাইবারযুক্ত উচ্চ খাবারগুলি প্রতিদিন গ্রহণের ফলে

*হৃদরোগ,

*স্ট্রোক, 

*ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমে

*ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি হয় 

এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বর্তমানে যা বেশির ভাগ ব্যাক্তিদের মধ্যে দেখা যায়

*ওজন হ্রাস করতে সাহায্য করে 

*কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে।

ফাইবার দুই ধরনের যা ব্যাক্তির দেহে এন্টিডোড হিসেবে কাজ করে-

১. ইনসলিউবল ফাইবার ( পানিতে দ্রবীভূত হয় না)- শরীর থেকে বর্জ্য পদার্থ নিষ্কাশনে, কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করতে সহায়তা করে। 

যেমন – গম, পুরো শস্য, লাল চাল, গাজর, শসা, পাতলা সবুজ শাক, আঙ্গুর,সবুজ মটরশুটি, কিশমিশ,টমেটো, চিচিঙা। 

২. সলিউবল ফাইবার (পানিতে দ্রবীভূত )- ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। 

যেমন – ওটস, বার্লি, বাদাম, বীজ, মটরশুটি, মসুর, ডাল এবং কিছু ফল ( আপেল,স্ট্রবেরি, নাশপাতি) সহ সকল শাকসবজিতে পাওয়া যায়।  

 

অনেক খাবারে ইনসলিউবল এবং সলিউবল ফাইবার উভয়ই থাকে তবে সাদা রুটি, সাদা ভাত এবং প্যাস্ট্রিগুলিতে বেশিরভাগ ফাইবার সরিয়ে ফেলা হয়।

যথেষ্ট পরিমাণে ফাইবার গ্রহণ না করলে পেটের সমস্যা, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং ডায়রিয়া হবে ঘন ঘন। 

 

গুরুত্বপূর্ণ তথ্যঃ  উচ্চ ফাইবার জাতীয় খাবার বয়স্কদের গ্রহণের সময় অনেকক্ষেত্রে হজম সহ বিভিন্ন সমস্যা হতে পারে তাই পুষ্টিবিদ এর পরামর্শ গ্রহণ করুন।

 

Writer:

Most. Nourin Mahfuj

Fitness Nutrition Specialist

Bio-xin Fitness Solution

Facebook Comments