আয়রন বনাম ক্যাফেইন

দেহের সকল কোষে সঠিক ভাবে কাজ করতে আয়রন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আয়রন লোহিত রক্ত কনিকার মাধ্যমে দেহ কোষ ও টিস্যুতে অক্সিজেন সরবরাহ করে শ্বাসগ্রহণ ও ত্যাগ এর প্রক্রিয়া দারা ব্রেইন ও মাসেল (মাংস পেশী)  সচল রাখে।

আয়রন এর অপর্যাপ্ততা ব্রেইন এর ক্রিয়া অচল করে দেয় যার  দরুন

*নিঃশ্বাসের দুর্বলতা

*অনিয়ন্ত্রিত হার্ট স্পন্দন ( কম/বেশি)

*ক্লান্তি

*মাথা ব্যাথা থেকে অ্যানিমিয়া হতে পারে।

 

খাদ্য গ্রহণের পর দেহে আয়রন শোষিত হতে কিছু সময় প্রয়োজন হয়। তাই চা ও কফি (ক্যাফেইন যুক্ত খাবার) যে কোন খাবার গ্রহণের সাথে সাথে খেলে তা আয়রন শোষনে বাধাঁ দেয়। 

যারা প্রায় প্রতি দিনে ১/২ বার চা কিংবা কফি পান করেন তারা যেকোন খাবার গ্রহণের ১.৩০/১ ঘন্টা আগে অথবা পরে চা কফি গ্রহণ করবেন এতে আপনাদের দেহে আয়রন শোষনে সমস্যা হবেনা।

 

অনেকের প্রশ্ন থাকে ক্যাফেইন যুক্ত পানিয় বিশেষত চা ও কফি গ্রহণের সাথে আয়রন এর অভাবজনিত অ্যানিমিয়া হওয়ার সম্ভাবনা কেমন??

  

# চা ও কফি ( ক্যাফেইনযুক্ত খাবার) গ্রহণের ফলে আপনার আয়রনের অভাবে অ্যানিমিয়া হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবে মাত্রাতিরিক্ত ক্যাফেইন গ্রহন আপনার আয়রন শোষনকে বাধা দিয়ে অ্যানিমিয়ার সম্ভাবনা  বাড়ায়।

(দিনে ১/২ বার এর বেশি নয় খাবার গ্রহণ থেকে নিদিষ্ট সময় ব্যবধানে গ্রহণ) 

 

# চা ও কফি (ক্যাফেইনযুক্ত খাবার ) গ্রহন এর মাত্রা কখনও বেশি হলে প্রানীজ প্রোটিন ( টারকি মুরগী , সামুদ্রিক মাছ, ডিমের কুসুম, লিভার, গিলা) এগুলো খাবারে গ্রহণ করতে হবে।

এগুলোর সাথে ভিটামিন-সি জাতীয় খাবার গ্রহণ করতে হবে কারন ভিটামিন-সি আয়রন শোষন বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে যার ফলে ক্যাফেইন এর খারাপ প্রভাব থেকে দেহে আয়রন শোষন বাধা গ্রস্থ হয় না। 

 

১. শিশু, 

২.অল্পবয়সী, 

৩. সন্তান জন্মদান বয়স, 

৪. সীমাবদ্ধ খাদ্যভাস ( সবজি ভোজী), 

৫. চিকিৎসাধীন অবস্থায়

৬. অন্ত্রের সমস্যা জনিত ব্যাক্তির দেহে আয়রন এর প্রয়োজন বেশি তাই চা ও কফি ( ক্যাফেইনযুক্ত খাবার ) এড়িয়ে চলবে।

 

বিঃদ্রঃ প্রাপ্ত  বয়স্ক  সুস্থ ব্যাক্তি চা ও কফি ( ক্যাফেইন)  চিনি ব্যাতিত কিংবা অল্প পরিমানে চিনি যোগে সেবন করলে শারীরিক ক্লান্তি দুর হয়।

 

Most. Nourin Mahfuj

Fitness Nutrition Specialist 

Bio-xin Fitness solution

Facebook Comments